1. admin@sunnah24.com : sunnah24 :
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ:
হেফাজতের আন্দোলনে আমাদের অর্জন ও ছাত্রদের পরীক্ষা বর্জন নিয়ে কিছু কথা – এহসানুল হক মুফতি ওয়াক্কাস রহ. এর জানাযা সম্পন্ন স্বপদে ফিরে এলেন মাওলানা আব্দুল আউয়াল সুনামগঞ্জের হিন্দুগ্রামে হামলা কিছু প্রশ্ন ও নতুন ষড়যন্ত্রের আভাস মাওলানা জসীম উদ্দীনের উপর হামলায় ইত্তেহাদের নিন্দা ও প্রতিবাদ সন্ত্রাস ও দূর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠন খেলাফত আন্দোলনের অন্যতম উদ্দেশ্য – আল্লামা শাহ আতাউল্লাহ হাফেজ্জী হেফাজত আমীরের সুস্থ্যতা কামনায় মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জীর দোয়া আহ্বান হাসপাতালে আল্লামা বাবুনগরী হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগর কমিটি ঘোষণা : ইত্তেহাদুল মাদারিসিল কওমিয়ার পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত: কমিটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ

মেয়েটির যোনিপথ ও পায়ুপথ একইসাথে রক্তাক্ত -দায় কার? মুফতি ওযায়ের আমীন

  • Update Time : শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৮২ Time View

যোনিপথ ও পায়ুপথ একই সাথে রক্তাক্ত নরাধম বালিকার। বাবা-মা ও বিপথগামী প্রগতিশীল নারীবাদীরা এর দায় এড়াতে পারে না।
হতভাগ্যের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে যদি সে নিহত না হত তখন এই বিকৃত যৌনাচার ব্যক্তি স্বাধীনতা হিসেবে আখ্যায়িত হতো। আর ঠিক এই কাজটুকুই যদি রেজিস্ট্রি চুক্তির মাধ্যমে সই হত তাহলে বাল্যবিয়ের দায়ে মেয়েছেলে সহ চৌদ্দগুষ্টিকে জেলখানায় থাকতে হতো। কি অদ্ভুত আইন, কি অদ্ভুত সমাজ?
অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে হলে পিতা-মাতার জেল হয়। এতটুকুন একটি মেয়ে নির্জন বাসায় স্টাডি সার্কেলের নামে ফিজিক্যাল রিলেশন করলো অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের নিহত হলো, পিতা-মাতা যেতে দিলো, এখন তারা কেন দায়ী হবে না? এখানে ছেলে ও মেয়ের অপরাধের পাশাপাশি অবশ্যই পিতা মাতাও ধর্ষণ ও খুনের জন্য দায়ী!
কুত্তি ও ছাগির (মাদি কুকুর ও মাদি ছাগল) যে লজ্জাটুকু আমরা রাস্তাঘাটে দেখতে পাই তার মাঝে এতটুকুন লজ্জাও নেই। কুত্তির পেছনে অনেকগুলো কুকুরকে ঘুরতে দেখা যায়; কিন্তু একটি কুত্তি কুকুরের পেছনে ঘুরতে লজ্জাবোধ করে। এর ব্যতিক্রম যদি ঘটে হাদিসের ভাষায় তাকে كالشاة العاهرة خلف الغنم অর্থাৎ “রমনের প্রত্যাশায় পাঁঠার পেছনে ঘুরতে থাকা নির্লজ্জ ছাগি” বলা হয়।
একটি মেয়ে যখন গ্রুপ স্টাডির নামে বয় ফ্রেন্ডের বাসায় গ্রুপসেক্স করে যোনিপথ ও পায়ুপথ একই সাথে রক্তাক্ত করে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে নিহত হয়। তখন তাকে কুত্তি ও ছাগীর চেয়ে নরাধম নির্লজ্জ মনে হয়।

লেখক: মুফতি ওযায়ের আমীন, প্রিন্সিপাল, জামেয়া রাহমানিয়া দারুল ইসলাম, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© কপিরাইট 2020, সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
Power by . E-mail: ababilhost@gmail.com